ফাইভার থেকে আয়
Home,  Mobile

ফাইভর গিগ । গিগ বানানোর সেরা ৮ টি টিপস!

Sharing is caring!

আসসালামু আলাইকুম! কেমন আছেন? আজ আমি আপনাদেরকে ফাইভর গিগ থেকে আয় করার সেরা ৮ টি টিপস সম্পর্কে জানাব।ফাইভর থেকে আয় , ফাইভর গিগ

আপনার যারা ফ্রিলেন্সিং করার কথা ভাবছেন তাদের সবার ফাইভার একউন্ট আছে। তাই আমি আজ ফাইভার একউন্ট খোলা নিয়ে কথা বলব না।

আজ আমি আপনাদেরকে “ফাইভর গিগ থেকে আয়” করার “সেরা ৮ টি টিপস” নিয়ে আলোচনা করব।

যদি কারো একাউন্ট করতে সমস্যা হয় তাহলে আমাকে জানাবে আমি আপনাদেরকে অন্য একটা টিউটরিয়ালে এ নিয়ে আলোচনা করব।

চলুন কথা না বাড়িয়ে শুরু করি।

ফাইভর গিগ

প্রথমেই জেনে নেই যে, ফাইভার গিগ কি? 

ফাইভার গিগ হল আপনি যে বিষয় নিয়ে নিজেকে এক্সপার্ট মনে করেন এমন কোন বিষয়ে একটা বর্ণনা  দিয়ে একটি পোস্ট লিখে ফাইভারে পাবলিশ করা।

তারপার আপনার এই অফার যদি কার পছন্দ হয়, তবে সে আপনাকে তার কাজে জন্য এই গিগটি অর্ডার করবে এটাই হল ফাইভার গিগ

এর পরেও না বুঝলে কমেন্ট করে জানবেন।

গিগ বানানোর সেরা ৮ টি টিপস!

ফাইভার থেকে আয় করার আমি যে সেরা ৮ টি টিপস দিব তা আপনারা সম্পর্ণ ফলো করবেন। আশা করি আপনি ফাইভারে গিগ  সেল করে ভাল ভাবে আয় করতে পারবনে।

১. আকর্ষণীয় টাইটেল ব্যবহার করুন 

আপনার গিগ সেল করার জন্য গিগের টাইটেল কে আকর্ষণীয় করে বানাবেন।

গিগের টাইটেল এমন কিছু লিখার চেষ্টা করবেন, যেন এই গিগের টাইটেল দেখে যে কোন ভায়ারের ক্লিক করতে মন চায়।

অনেকেই গিগের টাইটেল কপি করে নিয়ে আসে, আপনি এমন টি করবেন ন। কেননা তাহলে একদিন দেখবেন যে, ফাইভার আথরিটি আপনার গিগকে কেনসেল করে দিয়েছে।

২. একাধিক ইমেজ ব্যবহার করুন

আপনি আপনার মেসেজটিকে ভায়ারের নিকট যদি ভাল ভাবে দিতে চান এবং তাকে মোটভেট করতে চান তাহলে আপনি একাদিক ইমেজ এর ব্যবহার করবেন।

কেননা একাদিক ইমেজে আপনি আপনার ম্যাসেজটি যা বলতে চাচ্ছেন, তা ভাল ভাবে প্রকাশ করতে পারবেন।

ইমেজ ব্যবহার করার সময় ইমেজকে আপনার গিগের মূল কথা টি বিভিন্ন ভাবে ফুটিয়ে তুলতে পারেন।

কেননা ইমেজে টেক্সট দেয়ার মাধ্যমে ভায়ারের মন খুব সহজেই জয় করা যায়।

নিচের ছবিটি খেয়াল করুন, এখানে সেলার তার ম্যাসেজটি ক্লিয়ার করে দিয়েছে। এবং সে এই ধরণের একাধিক থামনেল ব্যবহার করেছে।

৩. গিগের যথাযথ বর্ণনা দিন

আপনরা গিগের সেল কে আরও বাড়ানোর জন্য গিগের যথাযথ একটি বর্ণ্না দিন। তবেই আপনি ফ্রিলেন্সিং কে আপনার ভাল একটি ক্যারিয়ার হিসেবে নিতে পারবেন।

এখানে ভায়ার যদি এই গিগটিকে ভায় করে তবে সে কি কি সুবিধা পাবে। এখানে কি থাকবে। এই বিষয় গুলো ভাল ভাবে লিখে দিবেন।

আইডিয়া নেয়ার জন্য আপনি যে কোন গিগ দেখতে পারেন বা ফলো করতে পারেন কিন্তু কোন গিগকে সরাসরি কপি করবেন না।

ফাইভর গিগ

৪. ভিডিও ব্যবহার করুন 

আপনার গিগে একটা ভিডিও ব্যবহার করবেন এবং ভিডিওতে আপনি কি কি সার্ভিস দিবেন তার একটা ধারণা দিবেন।

যাতে এই ভিডিও দেখে ভায়ার ধারণা নিতে পারে এবং বাই করার জন্য আগ্রহ করে।

ভিডিও এর ব্যবহার করার অন্যতম আরেকটি কারণ হল আজকের দিনে সাধারণত কেউ আর্টিকেল পড়তে চায় না।

সবাই চায় যে কম কষ্ট করে ইনফরমেশন নিতে।

তাই আপনি যদি ভিডিও দেন তাহলে সেই গিগে রিচ বেশি হবে বলে আশা করা যায়।

৫. নিজের সম্পর্কে জানাবেন 

নিজের সম্পর্কে ভাল ভাবে একটা ধারণা দিবেন, যাতে ভায়ার আপনার সম্পর্কে একটা ধারণা নিতে পারে যে, আপনি কোন দেশের, আপনি কোন কোন বিষয়ে ভাল, এবং কেন ভায়ার আপনার এই গিগকে কিনবে, এই বিষয়ে ছোট করে লিখবেন।

এবাউট মিতে আপনি এই বিষয় গুলো লিখে নিতে পারেন।

৬.  FAQ এর ব্যবহার 

FAQ এর দ্বারা কি বুঝায়, তা যারা জানেন না। তাদের জন্য বলছি যে, FAQ হল Frequently Asked Questions

এখানে আপনি এমন প্রয়োজনীয় সব প্রশ্ন ও উত্তর দিবেন যা ভায়ারের মনে আসতে পারে।

ভায়ার যাতে আপনার সার্ভিস, বা ভাল্ কোন ইনফরমেশন খুব সহজে জানতে পারে।

৭. তিন ধরণের সেল এর অফার দিবেন 

ফাইভারে Basic, Standard, Premium এই তিন ধরণের প্রাইজেই আপনি ভায়ারকে অফার করতে পারেন।

কেননা অনেক ভায়ার হতে ছোট একটা অফার দরকার, এমন অবস্থায় সে অনেক বড় কোন অফার গ্রহন করবে না।

আবার  তার ঠিক বিপরীত ও হতে পারে। কোন ভায়ারের বড় কোন অফার দরকার ।

এমন অবস্থায় সে বড় অফার গ্রহন করবে। এভাবে আপনি তিন ধরণের সেল অফার করতে পারেন।

৮. Delivery টাইম সেট করুন 

আপনি আপনার সার্ভিস্ টি কত সময়ের মাঝে Delivery দিতে পারবেন, সে সময়টি উল্লেখ করবেন।

চেষ্টা করবেন যাতে আপনি তাড়াতাড়ি Delivery দিতে পারেন।

ভায়াররা কোন গিগ কিনার আগে ক্যাটাগরিতে গিয়ে দেখে যে, কম সময়ে কে দিতে পারবে।

কেননা উন্নত দেশের মানুষরা ফ্রিলেন্সিং মার্কেটপ্লেসে আসে তাদের টাকা এবং সময় কে বাঁচানোর জন্য ।

তাই এই বিষয়টির প্রতি খেয়াল রেখে আপনি কম সময় Delivery দেয়ার জন্য প্লেন করুন।

দেখবেন যে আপনার সেল ভাল হবে।

এই টিউটরিয়ালে আপনি ফাইভার গিগ কিভাবে বানাবেন তা জানতে পারলেন। কোন পয়েন্ট বুঝে না আসলে কমেন্ট করে জানাবেন।

আরও জানতেঃ

SEO কি ?

পেইড এস ই ও কি?

Organic SEO কত প্রকার?

On Page SEO কি? 

Off Page SEO কি? 

 

One Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

shares